ব্র্যাকের অভিবাসন মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড ২০১৭

৬ ক্যাটাগরিতে ১৪ জন সাংবাদিক পুরস্কৃত

অভিবাসী কর্মী ও তাদের পরিবারের অধিকার রক্ষায় গণমাধ্যমের ভূমিকার জন্য ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম আজ বুধবার (১৮ই এপ্রিল, ২০১৮) অভিবাসন মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড-২০১৭ ঘোষণা করেছে। এবার সংবাদপত্র (জাতীয়), সংবাদপত্র (আঞ্চলিক), টেলিভিশন, রেডিও, অনলাইন পত্রিকা এবং আলোকচিত্রÑএই ছয় ক্যাটাগরিতে ১৪ জন সাংবাদিক পুরস্কৃত হয়েছেন।

পুরস্কার বিজয়ীরা হলেন, সংবাদপত্র (জাতীয়) ক্যাটাগরিতে প্রথম-সমকালের আবু যর আনছার উদ্দীন আহাম্মেদ, দ্বিতীয়-ঢাকা ট্রিবিউনের আদিল সাখাওয়াত এবং তৃতীয়-নিউ এইজ এর মুহাম্মদ ওয়াসিম উদ্দিন ভুঁইয়া। সংবাদপত্র (আঞ্চলিক) ক্যাটাগরিতে প্রথম-দৈনিক জালালাবাদের মোঃ কামরুল ইসলাম। টেলিভিশন রিপোর্টিংয়ে প্রথম-সময় টিভির আশীষ কুমার সরকার, দ্বিতীয়-একাত্তর টিভির ঝুমুর বারী এবং তৃতীয়-মাছরাঙার মাশরেক রাহাত। রেডিও রিপোর্টিংয়ে প্রথম-রেডিও টুডের সালেহ নোমান। অনলাইন ক্যাটাগরিতে প্রথম-ঢাকা ট্রিবিউনের মোঃ ফজলুর রহমান, দ্বিতীয়- দিরিপোর্ট২৪.কম এর মোঃ কাওসার আজম এবং তৃতীয়- বেনারনিউজ এর জেসমিন আক্তার। এ বছর প্রথমবারের মতো আলোকচিত্র ক্যাটাগরিতে পুরস্কার প্রদাণ করা হয়। এতে প্রথম হয়েছেন প্রথম আলোর সাইফুল ইসলাম রনি, দ্বিতীয়- প্রথম আলোর আবদুস সালাম এবং তৃতীয় আল জাজিরা ও ঢাকা ট্রিবিউনের ফটোসাংবাদিক মাহমুদ হোসেন অপু।

সকালে রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে আয়োজিত এই পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব নুরুল ইসলাম বি.এসসি। এ সময় ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক মুহাম্মাদ মুসা, অনুষ্ঠানের মূল বক্তা লেখক ও সাংবাদিক আনিসুল হক, বিশেষ অতিথি আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) ডেপুটি চীফ অফ মিশন আবদুস সাত্তার ইসোভ, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) মহাপরিচালক মোঃ সেলিম রেজা, ব্র্যাকের জ্যেষ্ঠ পরিচালক আসিফ সালেহ্ ও ব্র্যাকের অভিবাসন কর্মসূচির প্রধান শরিফুল ইসলাম হাসান উপস্থিত ছিলেন।

বিদেশগামীদের দক্ষ করা, নিরাপদ অভিবাসনপ্রক্রিয়া, বিদেশ থেকে পাঠানো টাকার সঠিক ব্যবহার, সামাজিক ও আইনি সহয়তা প্রদান, মানবপাচার প্রতিরোধ এবং প্রশিক্ষণ ও সালিশের মাধ্যমে অভিবাসীদের অধিকার রক্ষায় ২০০৬ সাল থেকে কাজ করছে যাচ্ছে ব্র্যাকের মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম। ২০১৫ সাল থেকে দেশে প্রথমবারের মত এই কর্মসূচি অভিবাসনবিষয়ক বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতাকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দিতে এই পুরস্কার চালু করে।

সাংবাদিকদের হাতে পুরস্কার তুলে দিয়ে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কমংস্থান মন্ত্রী বলেন, ‘অভিবাসন খাতের উন্নয়নে ব্র্যাক যে কাজ করছে তা প্রশংসনীয়। অভিবাসন বিষয়ে যারা সাংবাদিকতা করেন তাদের পুরস্কার দেওয়া একটি ব্যতিক্রমধর্মী আয়োজন। আর সাংবাদিকদের মাধ্যমেই আমরা তথ্য পাই। মানুষ যেন দুর্ভোগ ছাড়া বিদেশে যেতে পারে সেজন্য আমরা কাজ করছি।’

অনুষ্ঠানের মূল বক্তা সাংবাদিক ও লেখক আনিসুল হক বলেন, ‘এখন এক কোটিরও বেশি লোক বিদেশে আছে। আগামী কয়েক বছরে আরও লোক বিদেশে যাবে। প্রবাসী আয় এখন বাংলাদেশের অর্থনীতির সবচেয়ে বড় চালিকাশক্তি।’ সাংবাদিকদের ভূমিকা সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘গণমাধ্যম সচেতনতা তৈরিতে যেমন কাজ করে তেমনি নীতি নির্ধারণের ক্ষেত্রেও কাজ করছে।’

জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) মহাপরিচালক মোঃ সেলিম রেজা বলেন, ‘আমরা এখন বিদেশগামীদের দক্ষতার উপর বেশি জোর দিচ্ছি। বিদেশে বাংলাদেশি কর্মীদের চাহিদাও বাড়ছে।’

আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) ডেপুটি চীফ অফ মিশন আবদুস সাত্তার ইসোভ বলেন, জাতিসংঘের অভিবাসন বিষয়ক সংস্থা হিসেবে সরকার এবং বেসরকারি সংস্থাগুলোর সঙ্গে আমরা সহযোগিতার ভিত্তিতে কাজ করছি। এই সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।’

অনুষ্ঠানের সঞ্চালক ব্র্যাকের ঊর্ধ্বতন পরিচালক আসিফ সালেহ বলেন, সরকারি ও বেসরকারি সংস্থা সবাই মিলে একসঙ্গে কাজ করলে আমরা এই খাতে সুশাসন নিশ্চিত করতে পারবো। লোকজনকে দক্ষ করে বিদেশে পাঠাতে পারবো। অনুষ্ঠানে অভিবাসীদের অধিকার রক্ষায় গণমাধ্যমের ভূমিকা বিষয়ক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ব্র্যাকের অভিবাসন কর্মসূচির প্রধান শরিফুল ইসলাম হাসান।

এবারের পুরস্কার প্রদানের বিচারক ম-লীর সদস্য ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস, প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের উপপ্রধান (পরিকল্পনা) কে এম আলী রেজা, নিউজ ২৪ এর প্রধান বার্তা সম্পাদক শাহনাজ মুন্নী, ফটো সাংবাদিক পাভেল রহমান এবং মানুুষের জন্য ফাউন্ডেশনের সিনিয়র প্রোগ্রাম ম্যানেজার (রাইট্স) সারওয়াত বিনতে ইসলাম।

আমাদের কর্মস্থল

                

ব্র্যাক কুইজ

কোনটি দারিদ্র্য দূরীকরনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি কার্যকরী?

বিকল্প যোগাযোগ পন্থা