ঢাকায় শুরু হলো অস্ট্রেলিয়া অ্যাওয়ার্ডস অ্যালামনাইয়ের উদ্ভাবনী সম্মেলন

রাজধানীর একটি হোটেলে আজ মঙ্গলবার (৩১ শে অক্টোবর) উদ্বোধন হয়েছে ‘অস্ট্রেলিয়া অ্যাওয়ার্ডস অ্যালামনাই ইনোভেশন কনফারেন্স’। দক্ষিণ এবং পশ্চিম এশিয়ার ২৮ জন অ্যালামনাই এই সম্মেলনে উপস্থিত হন। অস্ট্রেলিয় সরকারের ডিপার্টমেন্ট অফ ফরেইন অ্যাফেয়ার্স অ্যান্ড ট্রেড-এর ‘অ্যালামনাই ইনোভেশন চ্যালেঞ্জ’ কার্যক্রমের অংশ হিসেবে এই সম্মেলনের সহ-আয়োজক ছিল ব্র্যাকের সোশ্যাল ইনোভেশন ল্যাব।

সম্মেলন উদ্বোধন করেন বাংলাদেশে নিযুক্ত অস্ট্রেলিয়ার হাই কমিশনার জুলিয়া নিবলেট এবং ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক ডা. মুহাম্মাদ মুসা। উদ্বোধনকালে জুলিয়া নিবলেট বলেন, ‘এই ইনোভেশন চ্যালেঞ্জটি বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন উদ্ভাবনের বিকাশে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।’ ডা. মুসা বলেন, ‘অস্ট্রেলিয় সরকার এবং ব্র্যাক বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে দীর্ঘদিন ধরেই একযোগে কাজ করছে। আমাদের বিশ্বাস, এই তরুণরা তাদের উদ্ভাবনী কাজের মাধ্যমে মানবকল্যাণে ভূমিকা রাখবেন।’

এই চ্যালেঞ্জের আওতায় চার মাস আগে বাংলাদেশসহ আফগানিস্তান, ভুটান, মালদ্বীপ, নেপাল, পাকিস্তান এবং শ্রীলংকার অ্যালামনাইদের অনুদান প্রদান করা হয়। ব্র্যাকের ব্যবস্থাপনা ও পরামর্শে তারা নিজ নিজ দেশে উদ্ভাবনমূলক কাজে এই অনুদান খরচ করেন। নিজ নিজ কাজের ফলাফল উপস্থাপনের জন্য এই সম্মেলনে যোগ দেন তারা। উপস্থিত অ্যালামনাইরা দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন মিশনপ্রধান, বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা, ফেলো অ্যালামনাই এবং সংশ্লিষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গের সামনে তাদের উদ্ভাবনী প্রকল্পগুলো উপস্থাপনের সুযোগ পান।

এই সম্মেলনের আগে গত রবি ও সোমবার সাভারে অ্যালামনাইদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ব্র্যাক ‘ডিজাইন স্প্রিন্ট’ কর্মশালার আয়োজন করে। আগামী বৃহস্পতিবার (২ নভেম্বর) বাংলাদেশে অস্ট্রেলিয় সরকারের সহায়তাপুষ্ট বিভিন্ন উন্নয়নমূলক উদ্ভাবনী কার্যক্রম পরিদর্শনের মাধ্যমে এই সম্মেলন শেষ হবে।

অস্ট্রেলিয় সরকার কর্তৃক প্রদানকৃত অ্যাওয়ার্ডগুলোর মধ্যে রয়েছে মর্যাদাপূর্ণ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক স্কলারশিপ এবং ফেলোশিপ। তারা পরবর্তী প্রজন্মকে সেই দেশে পড়াশুনা, গবেষণা এবং পেশাগত উন্নতির বিভিন্ন সুযোগও দিচ্ছে। গত পাঁচ বছরে দক্ষিণ এশিয়ার এক হাজারেরও বেশি শিক্ষার্থী অস্ট্রেলিয়ায় স্কলারশিপ পেয়েছেন। আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে পরবর্তী স্কলারশিপ ঘোষণা করা হবে।

আমাদের কর্মস্থল

                

ব্র্যাক কুইজ

কোনটি দারিদ্র্য দূরীকরনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি কার্যকরী?

বিকল্প যোগাযোগ পন্থা