প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ২০ জন চালককে সার্টিফিকেট প্রদান এবং নৌ-পরিবহন মন্ত্রীর ব্র্যাক ড্রাইভিং স্কুল পরিদর্শন

ব্র্যাক ড্রাইভিং স্কুল পরিদর্শন করেছেন নৌ-পরিবহন মন্ত্রী মো. শাজাহান খান এমপি। গতকাল মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর উত্তরার আশকোনাস' ব্র্যাক লার্নিং সেন্টারের (বিএলসি) ব্র্যাক ‘সুরক্ষা’ নামক এ ড্রাইভিং স্কুল পরিদর্শন করেন মন্ত্রী। ওই সময় তিনি প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ২০ জন ভারী গাড়ী চালককে সার্টিফিকেট প্রদান করেন। ওই সময় ব্র্যাক এর পরিচালক আহমেদ নাজমুল হুসেইন সহ ব্র্যাকের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা উপসি'ত ছিলেন।

মন্ত্রী তার ব্র্যাক ড্রাইভিং স্কুল পরিদর্শনকালে নারী গাড়ী চালকদের সঙ্গে কথা বলেন এবং তাদের অভিব্যক্তি জানতে চান। এরপর তিনি ড্রাইভিং স্কুলের চলমান প্রশিক্ষণের বিভিন্ন কার্যক্রম ও এর ক্লাশ রুম ঘুরে দেখেন। পরে তিনি প্রশিক্ষণ সমাপ্ত ২০ জন ভারী গাড়ী চালকের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতারণ করেন।
এ সময় ব্র্যাকের পরিচালক আহমেদ নাজমুল হুসেইন মন্ত্রীকে জানান, সরকারি গাড়ী চালক নেয়ার ক্ষেত্রে ১৫ শতাংশ মেয়েদের কোটা রয়েছে। সরকার অতিদ্রুত এ কোটা ব্যবস'া কার্যকর করার জন্য বিশেষ পদক্ষে নিতে মন্ত্রীর নিকট অনুরোধ জানান তিনি। 

নৌ-পরিবহন মন্ত্রী মো. শাজাহান খান এমপি বলেন, ক্যাপাসিটি অনুযায়ী প্রতিবছর বাংলাদেশে যে পরিমাণ ড্রাইভারের চাহিদা রয়েছে সে অনুযায়ী ড্রাইভার তৈরী হচ্ছে না। দক্ষ ও প্রশিক্ষিত গাড়ী চালক তৈরী করতে হলে ট্রেনিং ইনস্টিটিউট প্রয়োজন, কিন' বাংলাদেশে তা নেই। তবে মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর গাজীপুর ও নারায়নগঞ্জে দু’টি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। বে-সরকারি উদ্যোগেও কিশোরগঞ্জে একটি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এছাড়া ব্র্যাক তার প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মাধ্যমে দেশে দক্ষ ও প্রশিক্ষিত গাড়ী চালক তৈরী করছে, যা সত্যিেই প্রশংসনীয় ভুমিকা রাখছে। 

তিনি বলেন, ‘আমাদেরকে দক্ষ ড্রাইভার তৈরীতে কাজ করতে হবে। কারণ যত বেশি দক্ষ ড্রাইভার তৈরী হবে তত বেশি সড়ক দুর্ঘটনা কমবে।’ তিনি বলেন, যারা বলে বাংলাদেশ থেকে দুর্ঘটনা নির্মূল করা সম্ভব, তারা মিথ্যা বলে। কারণ কখনো  দুর্ঘটনা নির্মূল করা যায় না, বরং কমানো যায়। উন্নত বিশ্বে থেকেও দুর্ঘটনা নির্মূল সম্ভব হয়নি। বর্তমানে এখনো যুক্তরাজ্যে প্রতি ১০ হাজারে ২.৫ শতাংশ মানুষ দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে।
তিনি বলেন, এক সময় বাংলাদেশ সড়ক দুর্ঘটনার দিক থেকে বিশ্বের এক নম্বর রাষ্ট্র ছিল, বর্তমানে তা কমিয়ে দুই-এ নেমে এসেছে। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ কিছুটা উন্নতি লাভ করেছে। বাংলাদেশে বছরে ২০ হাজার লোক সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় বিশ্ব ব্যাংকের এমন গবেষণার সমালোচনা করে তিনি বলেন, বাংলাদেশে প্রতিদিন গড়ে ২০-২২ জনের বেশি লোক সড়ক দুর্ঘটনায় শিকার হওয়ার কোন কারণ নেই। পরিবহন সেক্টরকে আসামীর কাঠ গড়ায় দাড়ঁ করানোর জন্য এ ধরণের প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

উল্লেখ্য, ব্র্যাক এ পর্যন- ৭৮ জন ভারী গাড়ী চালককে ৩ দিনের প্রশিক্ষণ দিয়েছে।  
 

আমাদের কর্মস্থল

                

ব্র্যাক কুইজ

কোনটি দারিদ্র্য দূরীকরনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি কার্যকরী?

বিকল্প যোগাযোগ পন্থা